• ঢাকা শনিবার, ১৫ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

স্মৃতিসৌধে থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধ ক্যাম্প; একবার পরিক্ষা করে সারাজীবন সুরক্ষিত থাকুন!

আন্তর্জাতিক
|  ২৬ মার্চ, ২০১৯, ১১:৪৪ | আপডেট : ২৬ মার্চ, ২০১৯, ১১:৪৪

অরুপ সরকারঃ আজ মঙ্গলবার (২৬ শে মার্চ) মহান স্বাধীনতা দিবসে জাতীয় স্মৃতিসৌধ কম খরচে থ্যালাসেমিয়ার বাহক নির্ণয় পরিক্ষার জন্য আগ্রহীদের রক্তের নমুনা সংগ্রহ করা হয়।থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধি ক্যাম্পিং সহ ফ্রি রক্তের গ্রুপ পরিক্ষা সহ প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরামর্শ প্রদান করা হয়। ডাঃ এড্রিক বেকার ব্লাড ফাউন্ডেশনের আয়োজনে থ্যালাসেমিয়া হাসপাতাল ও ইনিস্টিটিউট এর সহযোগিতায় আজকের ক্যাম্পটি অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় উপস্থিত সকলকে থ্যালাসেমিয়া সম্পর্কে ব্যানার, ফেস্টুন দেখিয়ে সচেতন করা হয় এবং লিফলেট বিতরণ করা হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ১০.৫৫% লোক থ্যালাসেমিয়ার বাহক, একটা পরিসংখ্যান অনুযায়ী বাংলাদেশের ১৮কোটি মানুষের মাঝে প্রায় ১কোটি ৯২ লক্ষ মানুষ থ্যালাসেমিয়ার বাহক,মানে প্রতি ১৮জনের মাঝে দুইজন থ্যালাসেমিয়ার বাহক।

জীবনে একবার এই পরিক্ষা করলে সারাজীবন সুরক্ষিত।

দিন দিন বাড়ছে থ্যালাসেমিয়ার রোগীর সংখ্যা, যদি প্রতিরোধ না হয় পরিসংখ্যান বলছে আগামী ১০ বছরে প্রতিটি পরিবারে এক জন থ্যালাসেমিয়ার রোগী থাকবে।

থ্যালাসেমিয়া মুক্ত জীবন গড়তে এখনই করেন থ্যালাসেমিয়ার বাহক নির্ণয় পরীক্ষা।থ্যালাসেমিয়ার বাহক নির্ণয় পরীক্ষা বিভিন্ন ডায়াগনস্টিকে ১০০০-১৫০০ টাকা বা তার উর্ধ্বে।
মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে জাতীয় স্মৃতিসৌধে থ্যালাসেমিয়া হাসপাতালের উদ্যোগে ৮০০ টাকায় পরিক্ষাটি করানো হয়।

ডাঃ এড্রিক বেকার ব্লাড ফাউন্ডেশনের সভাপতি আব্দুল আওয়াল লিলন বলেন,আমরা মনে করি শুধু সচেতনতা বৃদ্ধিই যথেষ্ট নয় সেই সাথে বাহক নির্ণয় পরিক্ষা বাস্তবায়ন করতে হবে।এ জন্য সকল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে ভূমিকা রাখতে হবে সেইসাথে সরকারিভাবে থ্যালাসেমিয়ার বাহক নির্ণয় পরিক্ষা সল্পমুল্যে ও বাধ্যতামূলক করা জরুরী।

এসময় উপস্থিত ছিলেন থ্যালাসিমিয়া হাসপাতাল ও ইনিস্টিটিউটের কো-অরডিনেটর জনাব মাহমুদ আহমেদ,একজন জাপানিজ পরিদর্শক মিঃ ক্যান। জনাব মাহমুদ আহমেদ বলেন আমরা যে কেউ এই রোগের বাহক হতে পারি,তা বুঝার একমাত্র উপায় হিমোগ্লোবিন ইলেক্ট্রোফোরেসিস পরিক্ষা।তিনি আরো বলেন,দাদা দাদির অথবা নানা নানীর কেউ একজন বাহক হলে মা অথবা বাবা বাহক হতে পারে।বাবা মা একজন বাহক হলে তাদের সন্তানরা বাহক হবে সেক্ষেত্রে অবশ্যই পরিক্ষাটি করে নিশ্চিত হতে হবে।আর কোন ভাবে থ্যালাসেমিয়ার বাহক বাহকে বিয়ে করলে তাদের সন্তান হবে থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত।

থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত এবি পজেটিভ রক্তের শিশু নিরবের বাবা বলেন, আজ ৫ দিন ধরে নিরবের জন্য রক্ত খুঁজে যাচ্ছেন, নিরব এর জন্য প্রতি মাসে ২ ব্যাগ করে রক্তের প্রয়োজন হয় যার ব্যবস্থা অনেক কষ্টসাধ্য এবং ওর ঔষধ এবং রক্ত দেওয়া অনেক ব্যয়সাধ্য।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ডাঃ এড্রিক বেকার ব্লাড ফাউন্ডেশনের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যবৃন্দ।

থ্যালাসেমিয়ার বাহক নির্ণয় ও চিকিৎসার জন্য নিম্নের ঠিকানায় যোগাযোগ করতে পারেনঃ
থ্যালাসেমিয়া হাসপাতাল এন্ড ইনস্টিটিউট (ফাইলেরিয়া এন্ড জেনারেল হাসপাতাল চত্বর)
২ জিনজিরা হাসপাতাল রোড, কলমা-১, সাভার, ঢাকা। মোবাইলঃ ০১৭৭২-৫৪৪৪৬৯

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়